বাংলাদেশের কি হবে ????

বাংলাদেশের ভৌগোলিক বেঁচে থাকা নিয়ে বিজ্ঞানীরা যে ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন তা এক কথায় আঁতকে উঠার মতো। জাতিসংঘের মতে, শিল্পোন্নত দেশের কারখানা থেকে উৎপাদিত হওয়া গ্রিনহাউস গ্যাস বায়ুমন্ডলে মারাত্নক প্রভাব বিস্তার করে চলেছে। এতে বাড়ছে হিংস্র ঘূর্ণিঝড়, উচু হচ্ছে সমুদ্রের পানির স্তর। এ পানির স্তর যদি উঁচু হতেই থাকে, দূর্ভাগা বাংলাদেশই হবে প্রথম শিকার। বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা করছেন, 2050 সালের মধ্যে বাংলাদেশের অর্ধেক তলিয়ে যাবে সমুদ্রে। আর 2100 সালের মধ্যে হয়তো ডুবে যাবে সমগ্র বাংলাদেশ, কোটি কোটি মানুষ প্রাণ হারাবে উদ্বাসত্ত হবে বাংলাদেশীরা। বিজ্ঞানীদের এসব সাবধানবাণী ও আশঙ্কা থেকে আঁচ করা যায়, কত বড় সংকটের দিকে এগোচ্ছে বাংলাদেশ। অথচ এ নিয়ে একটুও আগ্রহ নেই সারা দেশে, কোথাও একটুকু হাহাকার নেই। বরং খবরটা চেপে রাখার চেস্টা চারদিকে। বাইশ শতকে বাংলাদেশ নামের কোন দেশ থাকবে না, বাঙালি হয়ে উঠবে ইহুদিদের মত উদ্বাস্ত। দেশ থেকে দেশে দেশান্তরী হবে তারা এ রকম একটি ভয়াবহ চিত্র বিজ্ঞানীরা তুলে ধরার পরও বাংলাদেশকে বাঁচানোর জন্য যেন কেউ নেই।সাংবাদপত্রগুলো ঠিক সে রকম সরব নয়্ সরকারেরও এ বিষয়ে বিশেষ ভাবনা আছে বলে মনে হয়না। জনগণও ব্যস্ত দৈনন্দিন জীবনযাপন নিয়ে অথচ কত বড় মহাপ্রলয় আর অনিশ্চয়তা যে বাংলাদেশের কপালে লেখা হযে গেছে, সে বিষয়ে কারো যেন কিছু করার নেই। পৃথিবীর মানচিত্র থেকে বাংলাদেশের বিলপ্তির জন্য কেয়ামত পর্যন্ত অপেক্ষা করার তার দরকার নেই এ রকম আশঙ্কা আর বিজ্ঞানীদের ভবিষ্যতদ্বাণীর পরও বাংলাদেশের বিলুপ্তির আশঙ্কাকে বাংলাদেশ সরকারও যেন স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছে।

Advertisements
This entry was posted in Uncategorized. Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s